Bangladesh
This article was added by the user . TheWorldNews is not responsible for the content of the platform.

বিবাহিত পুরুষরা বাথরুমে বেশি সময় কাটান! কারণ জানালেন বিশেষজ্ঞরা

বিবাহিত পুরুষরা বাথরুমে বেশি সময় কাটান! কারণ জানালেন বিশেষজ্ঞরা

বিবাহিত পুরুষরা বাথরুমে বেশি সময় কাটান! কারণ জানালেন বিশেষজ্ঞরা

এক্সক্লুসিভ ডেস্ক : প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বাথরুমে তো সবাই যান, তবে কেউ হয়তো বেশি সময় কাটান আর কেউ কেউ শুধু প্রয়োজনটুকুই সারেন দ্রুত। তবে সাম্প্রতিক তথ্য বলছে, বিবাহিত পুরুষরা নাকি বাথরুমে বেশি সময় কাটান। বিষয়টি হাস্যকর হলেও কিন্তু এর পেছনে যুক্তি আছে বিশেষজ্ঞদের। অনেক বিবাহিত নারীই তার স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানান, বাথরুমে ঘণ্টাখানেকের বেশি সময় নেওয়ার বিষয়ে।

এ বিষয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়া বেশ কিছু বিবাহিত পুরুষের সঙ্গে কথা বলে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে জানানো হয়েছে আসলে কী কারণে বেশিরভাগ বিবাহিত পুরুষরা বাথরুমে বেশি সময় কাটান। চলুন জেনে নেওয়া যাক এর সম্ভাব্য কয়েকটি কারণ-

স্ত্রীকে ঘরের কাজে সাহায্য করার ভয়ে!
অনেক পুরুষই জানিয়েছেন, ঘরের কাজ করার ভয়ে কিংবা এড়িয়ে যতেই বাথরুমে সময় কাটান তারা। যখনই স্ত্রী কোনো কাজ করার কথা বলেন তখনই তা এড়াতে ফোন নিয়ে বাথরুমে দৌড়ে যান অধিকাংশ পুরুষ।

জরিপে অংশ নেওয়া নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন জানিয়েছেন, ‘আমি থালা-বাসন ধোয়া বা ধুলাবালি পছন্দ করি না, অথচ স্ত্রী এ দুটি কাজই আমার জন্য রেখে দেন। অনেক সময় এ কাজ এড়াতে আমি ঘণ্টাখানেক সময় পার করি বাথরুমে।’

কান্না করতে...
জানলে অবাক হবেন, কখনো কখনো পুরুষরা কাঁদতেও বাথরুম যান। এই স্থান হলো সবচেয়ে নিরাপদ স্থান পুরুষের জন্য। যেহেতু পুরুষরা অন্যের সামনে কাঁদতে অভ্যস্ত নয় এমনকি নিজের সঙ্গীর সামনেও, তাই মন খারাপ হলে অনেক পুরুষই হয়তো বাথরুমে গিয়ে কান্না করেন।

স্ট্রেস এড়াতে
বাথরুম কোম্পানি পেবল গ্রে’র করা ২০১৮ সালের গবেষণা বলছে, যুক্তরাজ্যের এক তৃতীয়াংশ পুরুষ বছরে সাত ঘণ্টারও বেশি সময় টয়লেটে কাটায়, ‘অবকাশ উপভোগ করতে’ ও ‘স্ট্রেস এড়াতে’।

সোশ্যাল মিডিয়ায় সময় কাটাতে
গবেষণায় অংশ নেওয়া ৮৪ শতাংশ পুরুষ জানিয়েছেন, তারা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেন যেখানে ৬৮ শতাংশ ভিডিও দেখেন ও ৬২ শতাংশ খবর পড়েন।

পরবর্তী সর্বাধিক জনপ্রিয় বিকল্পগুলো হলো ইমেল পড়া (৪৯ শতাংশ) ও টিভি সিরিজের পর্ব দেখা (২৪ শতাংশ)। আবার অনেকেই জানিয়েছেন বই পড়েন (১৪ শতাংশ) বা কল করে (৮ শতাংশ) অন্য কারও সঙ্গে কথা বলেন।

গবেষণায় পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, পুরুষের তুলনায় নারীরা খুব কম সময় কাটান বাথরুমে। গবেষকরা এ বিষয়ে ১০ জন নারীকে প্রশ্ন করেন যারা বলেছেন, যে তারা বাথরুমে ১০ মিনিটের বেশি সময় কখনো কাটাননি।

মার্কিন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী সংস্থা জেইসিঙ্গারের মতে, মানুষের গড় মলত্যাগে সময় লাগে ১২ সেকেন্ড। যদিও এটি কখনো কখনো বেশি সময় নিতে পারে। তবে তা কখনো ১০ মিনিটের বেশি হতে পারে না, বলছে সংস্থাটি। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া/ভাইস.কম