Bangladesh
This article was added by the user . TheWorldNews is not responsible for the content of the platform.

গাইবান্ধায় পটল চাষে অল্প পুঁজিতে বেশি লাভ  

গাইবান্ধায় পটলের বাম্পার ফলন হয়েছে। অনুকূল আবহাওয়ায় ফলন ভালো হওয়ার পাশাপাশি বাজারে দর ভালো পাওয়ায় খুশি জেলার কৃষক। 

জেলা সদর, সুন্দরগঞ্জ, সাদুল্লাপুর, পলাশবাড়ী, গোবিন্দগঞ্জ, সাঘাটাসহ সাত উপজেলার আনেক জমিতেই এ বছর পটলের চাষ ভালো হয়েছে। সদরের ঘাগোয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমিনুজ্জামান রিংকু বলেন, রাস্তার দুপাশে যতো দূর চোখ যায় পটলসহ সাথী ফসলের ক্ষেত চোখে পড়ে। শুধু পটল নয়, একই মাচায় ঝুলছে চিচিংঙ্গা, ধুন্দল, করলাসহ নানা জাতের সবজি। 

পটল চাষী আলতাফ হোসেন জানান, মাচায় যে পটল হয়েছে তাতে ৪৩ হাজার টাকার পটল বিক্রি করেও আরও অন্তত ৬০ হাজার টাকার পটল বিক্রি করতে পারবো। এতে অন্তত ৮৫ হাজার টাকা লাভ হবে।  

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রেজা ই মাহমুদ বলেন, উপজেলা সদরে পটলের হাট বসে। বহু জেলা থেকে পাইকার আসেন। কিনে নিয়ে যান। সেগুলো ট্রাকে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন হাট-বাজারে বিক্রি হয়। প্রতি কেজি খুচরা বিক্রি হয় ৩০ টাকা।  

পটল চাষী মোহাম্মেল হোসেন জানান, পটল চাষে ঝামেলা কম। অল্প খরচেই হয় বলে লাভজনক। পটল মানেই নগদ টাকার আবাদ। এক বিঘা জমি থেকে সপ্তাহে ৮ থেকে ১০ মণ পর্যন্ত পটল উৎপাদন হতে পারে। পটলের মধ্যই আদা, হলুদ, কচু আবাদ করছেন অনেকে। 

গাইবান্ধা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বেলাল হোসেন জানান, এবার জেলায় ৪৮১ হেক্টর জমিতে পটলের চাষ হয়েছে। সরকার সবজির ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করলে পারলে আগামীতে পটল চাষ আরও বৃদ্ধি পাবে।