Bangladesh

হার দিয়ে শুরু টাইগারদের

লড়াইটা ঠিক জমল না। এ জন্য মূলত বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা দায়ী! ৫ উইকেটে ১৪১ রান। চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়তে না পারলে লড়াইটা জমবে কীভাবে? পাকিস্তানের কাছে হার ৫ উইকেটে; তাও আবার ৩ বল বাকি থাকতে। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেল স্বাগতিকরা। আজ দ্বিতীয় ম্যাচ। সিরিজের ভাগ্য নির্ধারণ করে দেবে এটি। ম্যাচটি জিতে সিরিজে ফিরতে পারবে তো বাংলাদেশ?

লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামের উইকেট বেশ মন্থর ছিল। বল ধীরে ব্যাটে এসেছে। দুই দলের ব্যাটিংয়ে তাই টি-টোয়েন্টির ঝাঁজ ছিল না। পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে ৩৫ রান তুলতে পারে বাংলাদেশ। দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও নাইম শেখ ওয়ানডে মেজাজে ব্যাটিং করেন। উদ্বোধনী জুটিতে ৬৬ বলে ৭১ রান স্কোরকার্ডে যোগ করে বাংলাদেশ। তামিম ৩৪ বলে ৩৯ রান করেন। তার স্ট্রাইকরেট নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ৪১ বলে ৪৩ রান করেন নাইম শেখ। মন্থর উইকেটে লিটন, মাহমুদউল্লাহ, আফিফ, সৌম্যরাও ব্যাটে ঝড় তুলতে পারেননি। দলীয় স্কোরকার্ড তাই হৃষ্টপুষ্ট হয়নি।

ম্যাচে ব্যবধান গড়ে দিয়েছেন শোয়েব মালিক। কদিন আগেই বিপিএল খেলে গেছেন। পাকিস্তানের এই অলরাউন্ডার বাংলাদেশের বোলারদের বেশ ভালোভাবেই চেনেন-জানেন! তিনি ৪৫ বলে ৫৮ রানের

দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন। ম্যাচসেরা শোয়েব মালিক দলকে জয়ী করে মাঠ ছেড়েছেন।

পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশ কোনো উইকেট না হারিয়ে ৩৫ রান তুলেছে। পাকিস্তান ২ উইকেট হারিয়ে ৩৬ রান করে। শুরুতে বিপর্যয়ে পড়লেও চাপটা তারা কাটিয়ে ওঠে। ব্যাটিংয়ের মতো বাংলাদেশের ফিল্ডিংটাও যে বাজে হয়েছে। এ ছাড়া বোলাররাও নিজেদের সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি। মোস্তাফিজ ১০ ইকোনমিতে ৪০ রান দিয়েছেন। পাকিস্তানের ইনিংসে ১৫টি চার থাকলেও ছিল না কোনো ছক্কা।

দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে এখন সিরিজে ফেরাটাই লক্ষ্য বাংলাদেশের। প্রথম ম্যাচ হারের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে মাহমুদউল্লাহ জানিয়েছেন, ১৫ রান কম হয়েছে। ভালো লড়াই হয়েছে বলেও মনে করেন বাংলাদেশের অধিনায়ক। উইকেটের আচরণে তিনি বিস্মিত হয়েছেন এবং জানিয়েছেন, শট খেলা কঠিন ছিল। পাক বোলারদের কৃতিত্বও দিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। এ ছাড়া কিছু ক্যাচ মিস এবং বাজে ফিল্ডিংকে হারের জন্য দায়ী করেন বাংলাদেশের অধিনায়ক। তার বিশ^াস, দ্বিতীয় ম্যাচটি জিতে সিরিজে ঘুরে দাঁড়াবেন।

জয়ে সিরিজ শুরু করতে পেরে দারুণ খুশি বাবর আজম। পাকিস্তানের অধিনায়ক বলেছেন, এ জয়টা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। বাংলাদেশকে অল্প রানে আটকে ফেলার জন্য বোলারদের প্রশংসা করেছেন বাবর। উইকেট এমন মন্থর হবে তা আশা করেননি পাক অধিনায়ক।