logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo
star Bookmark: Tag Tag Tag Tag Tag
Bangladesh

রানের পাহাড়ই চাপিয়ে দিল অস্ট্রেলিয়া

রানের পাহাড়ই চাপিয়ে দিল অস্ট্রেলিয়া

ব্যাটিং স্বর্গ ট্রেন্ট ব্রিজে টস জিতেই ব্যাটিং নিয়ে নেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। উদ্দেশ্য পরিষ্কার। বাংলাদেশের কাঁধে রানের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া।

সেই উদ্দেশ্য পুরোপুরিই সফল হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার। নির্ধারিত ৫০ ওভার ব্যাট করে ৫ উইকেটে ৩৮১ রান করেছে তারা। যা চলতি আসের তৃতীয় দলীয় সংগ্রহ।

অস্ট্রেলিয়াকে পাহাড়ে তুলতে বড় ভূমিকা রেখেছেন ডেভিড ওয়ার্নার। টাইগার বোলারদের হতাশায় ভুগিয়ে আসরের সর্বোচ্চ ইনিংসটি খেলেই তবে সাজঘরে ফিরেছেন তিনি।

সাজঘরে অবশ্য তিনি ফিরতে পারতেন ব্যক্তিগত ১০ রানের মাথায়। কিন্তু মাশরাফির বলে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে সাব্বির সহজ ক্যাচ ফেলে দেওয়ায় সে যাত্রায় বেঁচে যান তিনি।

সেই ক্যাচ ফেলার মূল্য ভালোভাবেই চুকাতে হয়েছে বাংলাদেশকে। ৫টি ছক্কা ও ১৪টি চারে সাজিয়ে ১৪৭ বলে ১৬৬ রান করেই তবে থেমেছেন ওয়ার্নার।

দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান এসেছে উসমান খাজার ব্যাট থেকে। আসরের প্রথম দিকে খুব একটা ছন্দে ছিলেন না তিনি। কিন্তু ট্রেন্ট ব্রিজে নিজের ছন্দ ফিরে পেয়েই করলেন ৮৯ রান। তার ৭২ বলের ইনিংসে ছিল ১০টি চারের মার। এছাড়া অ্যারন ফিঞ্চ করেছেন ৫৩ রান।

ওয়ার্নার আউট হলে মাঠে ঝড় তুলতে নামানো হয় গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে। কাজটা তিনি ভালোভাবেই পালন করেছেন। মাঠে নেমেই ৩টি ছক্কা ও ২টি চারে সাজিয়ে ১০ বলে ৩২ রানের এক তাণ্ডব চালান। ম্যাক্সওয়েল রান আউটের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়লে কিছুটা স্বস্তি নামে বাংলাদেশ শিবিরে।

এরপর অস্ট্রেলিয়ার রানের গতিতে কিছুটা লাগাম টেনে ধরে বাংলাদেশের বোলারা। এরপর দ্রুত খাজা ও স্টিভেন স্মিথ (১) হারায় অজিরা।

অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসের ৪৯তম ওভারে বৃষ্টি নামে। কিছুক্ষণ বন্ধ থাকার পর শুরু হয় আবার খেলা। বৃষ্টি থেকে ফিরে বাকি এক ওভারে আরো ১৩ রান যোগ করে অস্ট্রেলিয়া। অপরাজিত ছিলেন মার্কাস স্টয়নিস (১৭*) ও অ্যালেক্স ক্যারি (১১*)।

অস্ট্রেলিয়ার টপ অর্ডারের ৩ ব্যাটসম্যানকেই আউট করেন সৌম্য। নিয়মিত বোলাররা যখন কোনভাবেই অজিদের ওপেনিং জুটি ভাঙতে পারছিল না তখন একুশতম ওভারে সৌম্যর হাতে বল তুলে দেন মাশরাফি।

অধিনায়কের আস্থার প্রতিদান দিয়ে নিজের প্রথম ওভারের পঞ্চম বলেই তুলে নেন ফিঞ্চকে। অস্ট্রেলিয়ার রান তখন ১২১।

এরপর ওয়ার্নার ও খাজা মিলে গড়েন ১৯২ রানের জুটি। ওয়ার্নারকে আউট করে এই জুটিও ভাঙেন সৌম্য। তার কিছুক্ষণ পর সৌম্যর তৃতীয় শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন খাজাও। সৌম্য ছাড়াও মোস্তাফিজুর রহমান পেয়েছেন ১ উইকেট।

পিএ

All rights and copyright belongs to author:
Themes
ICO