Bangladesh

সরোবরে সফল চাষি সুমধুর সংকটে

জলাধারে পদ্মচাষে সফল চাষি সিরাজুল ইসলাম


তিনপ্রহরের বিলে পদ্ম ফুলের মাথায় সাপ আর ভ্রমরের খেলা দেখানোর আশা দিয়েও কথা রাখেনি মাঝি নাদের আলী। তাই এই ক্রীড়াদৃশ্য কেমন তা শুধু মানসচোখেই দেখতে হয়েছে। ব্যক্তি ভেদে এই দৃশ্যের নান্দনিকতায় হেরফের হতে পারে। কিন্তু বাস্তবের সরোবরে পদ্ম আর গোখরোর সন্ধি খুঁজতে হলে কোনও এক তিনপ্রহর কাটাতে হবে যশোরে। সম্প্রতি চার বিঘা জলাধারে পদ্ম ফুলের চাষ করেছেন যশোরের শার্শার বেড়ি নারায়নপুর গ্রামের আবদুল বারিক ওরফের ফুল বারিকের ছেলে সিরাজুল ইসলাম। পৈত্রিক সূত্রেই ফুলের ব্যবসায় তার হাতেখড়ি। কিন্তু তিনি ব্যতিক্রমভাবে পদ্মফুলে স্বপ্ন বুনেছেন। এবং দুই বছরের সাধনায় সফলতার মুখ দেখেছেন। এখন সরোবরের সামনে এলেই তার ফুসফুস প্রশস্ত হয়ে যায় মৌ মৌ সুবাসে। তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে তার সেই স্বপ্ন-সুখের দোলায় দুঃস্বপ্নও হানা দিয়ে যায়। যদি ঠিকঠাক বিক্রি না হয়, তাহলে লাভের মুখ দেখবেন কী করে! 

সরেজমিনে দেখা যায়, চার বিঘা জলাধারে বিছিয়ে আছে হাজার হাজার পদ্ম ফুল। মৃদু সুবাসে দোলা খাচ্ছে ঢেউয়ের পর ঢেউ। কেউ আসছেন পদ্ম ফুলের সৌন্দর্য দেখতে, আবার কেউ আসছেন শখ করে পদ্ম পাতা ও ফুল কিনতে।

ফুল কিনতে আসা মাহমুদুল হাসান বলেন, 'এই পদ্ম ফুল আগের মতো এখন আর দেখা যায় না। বহুযুগ পরে সিরাজুল ভাইয়ের মাধ্যমে আমরা আবার এই পদ্ম ফুলের দেখা পেলাম। তাই বাড়িতে স্ত্রী-সন্তানদের জন্য পদ্ম পাতা ও ফুল কিনতে এসেছি।'

সরোজ

আকাশ ও শাওন এসেছেন পদ্ম ফুল দেখতে। তারা জানান, লোক মুখে খবর পেয়ে পদ্ম ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে এসেছেন তারা।

জানতে চাইলে পদ্মচাষি সিরাজুল ইসলাম বলেন, 'দীর্ঘ দুই বছরের চেষ্টায় এখন আমি এই ফুল চাষে সফল হয়েছি। একবার এই ফুলের বংশ বৃদ্ধি পেলে আর পেছনে ফিরে তাকানো লাগে না। কোনও খরচ ছাড়ায় পদ্ম ফুলের চাষ করে এক মৌসুমে লাখ টাকা আয় করা সম্ভব। এই ফুলের ডাটা, পাতা, ফুল, কুঁড়ি ও ফলের আলাদা আলাদা চাহিদা রয়েছে। তবে দুঃখের বিষয় হলো, এমন সময় আমার চাষের সফলতা এসেছে যখন করোনাভাইরাসের মহামারি। যার কারণে দূর-দূরান্ত থেকে কেউ ফুল কিনতে আসতে পারছেন না। তাই সব মিলিয়ে সফলতার প্রথম মৌসুমেই বেচাকেনা কম হওয়ায় লাভ-লোকসানের হিসাব মেলাতে পারছি না।' মৌসুম থাকতে থাকতে যদি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলে আসে তবে কিছুটা হলেও লাভের মুখ দেখতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

সিরাজের সরোবর

শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সৌতম কুমার শীল বলেন, 'দেশে এবং দেশের বাইরে পদ্ম ফুলের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এই ফুলের চাষ ও ব্যবহার সঠিকভাবে করতে পারলে অনেকাংশে লাভবান হওয়া সম্ভব। আমার কৃষি বিভাগ প্রতিটি চাষে এবং প্রতিটি কৃষককে সব সময় সুযোগ সুবিধা দিতে প্রস্তুত। চাষি সিরাজুল ইসলাম আমার কাছে কোনও সহযোগিতা চাইলে সার্বিকভাবে সাহায্য করার চেষ্টা করবো।'

জানা যায়, পদ্ম মূলত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া থেকে এসেছে। এটি কন্দ জাতীয় ভূ-আশ্রয়ী বহু বর্ষজীবী জলজ উদ্ভিদ। এর বংশ বিস্তার ঘটে কন্দের মাধ্যমে। পাতা পানির ওপরে ভাসলেও এর কন্দ বা মূল পানির নিচে মাটিতে থাকে। পানির উচ্চতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে গাছ ও বৃদ্ধি পেতে থাকে। পাতা বেশ বড়, পুরু, গোলাকার ও রঙ সবুজ হয়। পাতার বোটা বেশ লম্বা, ভেতরের অংশ অনেকটাই ফাঁপা থাকে। ফুলের ডাটার ভেতরের অংশে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অসংখ্য ছিদ্র থাকে। ফুল আকারে বড় এবং অসংখ্য নরম কোমল পাপড়ির সমন্বয়ে সৃষ্টি একেকটি পদ্ম ফুলের। ফুটন্ত তাজা ফুলে মিষ্টি সুগন্ধ থাকে। এই ফুল রাতে ফোটে এবং সকাল থেকে রৌদ্রের প্রখরতা বৃদ্ধির পূর্ব পযর্ন্ত প্রস্ফুটিত থাকে। রোদ বাড়লে ফুল সংকুচিত হয় ও পরবর্তীতে ফের নিজেকে মেলে ধরে। ফুটন্ত ফুল এভাবে বেশ অনেক দিন ধরে সৌন্দর্য ছড়ায়। এই ফুলের রঙ মূলত লাল-সাদা ও গোলাপির মিশ্রণ যুক্ত। এছাড়াও লাল, সাদা ও নীল রঙের ফুলও আছে। পদ্ম ফুল বর্ষা মৌসুমে ফোটা শুরু হয়। তবে শরতে অধিক পরিমাণে ফোটে এবং এর ব্যাপ্তি থাকে হেমন্তকাল পর্যন্ত।

Football news:

Pep Guardiola: I would have stayed at Manchester City and in League 2
Manchester United is ready to sell Alexis, Lingard, Smalling, Dalot, Jones and Rojo
Frank Lampard: I expect more from Chelsea, but now the result is most important
Atalanta does not lose 15 matches in a row – 13 wins and 2 draws
Lorient threw one newcomer off a plane and sent another under the water-all for the sake of presentations on social networks
Pasalic scored a hat-trick in the match against Brescia. Atalanta smashes the opponent 6:1
Rummenigge on Ribery: Hennessy was like a second father to him, and I was like a second mother