Bangladesh
This article was added by the user . TheWorldNews is not responsible for the content of the platform.

যাদের ওটস খাওয়া ঠিক নয়

যাদের ওটস খাওয়া ঠিক নয়

যাদের ওটস খাওয়া ঠিক নয়

এক্সক্লুসিভ ডেস্ক : ওটসকে একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্য হিসাবেই আমরা জানি। এটি আমাদের শরীরের নানা উপকারও করে থাকে। তবে অন্য যেকোনো খাবারের মতো ওটস সবার জন্য উপযুক্ত নাও হতে পারে। ওটস খাবেন কি না তা ভেবে দেখার যথেষ্ট কারণও রয়েছে। ওটস খাওয়ার বিভিন্ন উপকারিতার পাশাপাশি রয়েছে কিছু অপকারিতাও। এটি কারও কারও জন্য উপকারী নাও হতে পারে। অপকারিতাগুলো জানা থাকলে সম্ভাব্য ক্ষেত্রে এড়িয়ে চলা সম্ভব হবে। চলুন জেনে নেওয়া যাক ওটস খাওয়ার ৫ উপকারিতা-

হজমের সমস্যা
ওটস প্রাকৃতিকভাবে গ্লুটেন-মুক্ত হলেও এটি কারও কারও ক্ষেত্রে সমস্যা তৈরি করতে পারে। ওটস প্রক্রিয়াজাত করার সময় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে গম, বার্লি ইত্যাদির মতো গ্লুটেন যুক্ত হয়। এটি সংবেদনশীল কারও ক্ষেত্রে প্রতিকূল প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। সিলিয়াক ডিজিজ বা নন-সেলিয়াক গ্লুটেন ইনটলারেন্স রয়েছে এমন কারও ক্ষেত্রে এটি ক্ষতিকর হতে পারে। কখনও কখনও ওটসের উচ্চ ফাইবার উপাদান পেট ফাঁপা, গ্যাস ও হজমের সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে।

রক্তে শর্করার বৃদ্ধি
ওটস একটি জটিল কার্বোহাইড্রেট। এটি রক্তে শর্করার মাত্রা দ্রুত বৃদ্ধি করতে পারে, বিশেষ করে যখন বেশি পরিমাণে খাওয়া হয়। এটি ডায়াবেটিসযুক্ত ব্যক্তির জন্য বা যারা রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে চায় তাদের জন্য উদ্বেগের কারণ হতে পারে। যদিও কার্বোহাইড্রেট একটি সুষম খাদ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, তবে পরিমিত না খেলে অনেক বেশি ওটস খেলে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি ক্যালোরি শরীরে প্রবেশ করতে পারে। যারা ওজন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন বা যাদের ডায়াবেটিস আছে তাদের জন্য এটি উদ্বেগের কারণ হতে পারে। কারণ ওটস যদি প্রচুর পরিমাণে খাওয়া হয় তবে তা দ্রুত রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়াতে পারে।

উচ্চ ফসফরাস সামগ্রী
ওটসে তুলনামূলকভাবে বেশি ফসফরাস থাকে, যা কিডনির সমস্যায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য সমস্যার কারণ হতে পারে। অতিরিক্ত ফসফরাস গ্রহণের ফলে খনিজ ভারসাম্যহীনতা দেখা দিতে পারে এবং কিডনির স্বাস্থ্য খারাপ হয়ে যেতে পারে। যাদের কিডনির সমস্যা আছে তারা ওটস খাওয়ার আগে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে নেবেন।

অ্যালার্জি
গমের মতো অন্যান্য শস্যের অ্যালার্জির তুলনায় ওটসে অ্যালার্জি তুলনামূলকভাবে কম। তবে কারও কারও ক্ষেত্রে ওটস খাওয়ার ফলে অ্যালার্জি দেখা দিতে পারে। হালকা ত্বকের জ্বালা থেকে আরও গুরুতর অ্যালার্জি পর্যন্ত হতে পারে। ডায়েটে ওটস যোগ করার আগে অ্যালার্জি সম্পর্কে সচেতন হওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

প্রক্রিয়াজাত ওটসের অপকারিতা
ইনস্ট্যান্ট ওটস এবং স্বাদযুক্ত ওটমিল প্রক্রিয়াজাত করা হয়। এগুলো শর্করা, কৃত্রিম স্বাদ এবং প্রিজারভেটিভ দিয়ে ভরা থাকে। ওটসের এই অত্যধিক প্রক্রিয়াজাত সংস্করণগুলো স্বাস্থ্যের সুবিধা দেওয়ার পরিবর্তে সামগ্রিকভাবে একটি অস্বাস্থ্যকর খাবার হয়ে উঠতে পারে। কম প্রক্রিয়াজাত, প্লেইন ওটস বেছে নিন। সেগুলোতে স্বাস্থ্যকর ফল, মধু ইত্যাদি যোগ করে খান।