Bangladesh

জামিনের শর্ত ভেঙ্গে ঈদ করলেন যুদ্ধাপরাধ মামলার আসামি

ছবিতে সামনে থেকে বাঁয়ে যুদ্ধাপরাধী জুবায়ের মনিরসুনামগঞ্জের শাল্লায় যুদ্ধাপরাধ মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামি জোবায়ের মনির অসুস্থতা দেখিয়ে আদালত থেকে জামিন নিয়ে জামিনের শর্ত ভঙ্গ করে গোপনে এলাকায় এসে ঘুরে গেছেন। তিনি ঈদের আগের দিন গ্রামের বাড়ি শাল্লা উপজেলা দৌলতপুরে গিয়ে পশু কোরবানিতে অংশ নেন। পরে নিজস্ব লোকজন নিয়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে সোমবার (৩ আগস্ট) ঢাকায় ফিরেন।  
এ ঘটনায় মামলার বাদী, সাক্ষী ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানুষজন আতঙ্কে আছেন। এই এলাকায় একক প্রভাবশালী হিসেবে এখনও প্রতিষ্ঠিত জোবায়ের মনিরের পরিবার। যার ফলে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানুষজন সব সময়ই তটস্থ থাকেন।
যুদ্ধাপরাধের বিচারের দাবিতে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৬ সালে ট্রাইব্যুনালে একাত্তরে গণহত্যা, নারী নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের অভিযোগে জোবায়ের মনির, তার ভাই প্রদীপ মনির ও চাচা মুকিত মনিরসহ যুদ্ধাপরাধে সম্পৃক্তদের বিরুদ্ধে চারটি অভিযোগ দায়ের করা হয়। ওই বছরের ২১ মার্চ অভিযোগের তদন্ত শুরু করে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। পেরুয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা রজনী দাসের দায়েরকৃত মামলায় ২০১৮ সালের ২০ ডিসেম্বর জোবায়ের মনির, জাকির হোসেন, তোতা মিয়া টেইলার, সিদ্দিকুর রহমান, আব্দুল জলিল, আব্দুর রশিদসহ অভিযুক্ত ৬ যুদ্ধাপরাধীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। অভিযোগ দায়েরের পরই আমেরিকায় পালিয়ে যায় অভিযুক্ত জুবায়ের মনির, যুদ্ধাপরাধ মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত কামরুজ্জামানের আইনজীবী ও ইসলামি ছাত্র শিবিরের সাবেক সভাপতি শিশির মনিরের বাবা যুদ্ধাপরাধী মুকিত মনির। ২০১৯ সালের ১৭ জুন তদন্ত সংস্থা একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে জোবায়ের মনিরসহ ১১জন জড়িত বলে ট্রাইব্যুনালে অভিযোগ দাখিল করে। গত ফেব্রুয়ারিতে আদালতকে অসুস্থতার সাজানো তথ্য দিয়ে জোবায়ের মনির ‘টাউন জামিন’ মঞ্জুর করিয়ে নেয়। শর্ত মতে শহরে বাসায় অবস্থানের নির্দেশনা দিয়ে জামিন মঞ্জুর করা হলেও সুস্থ জোবায়ের মনির প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ান এলাকায়ও।

এবার ঈদুল আজহার আগে শাল্লা উপজেলার দৌলতপুর গ্রামে এসে ঈদের জামাত আদায়সহ একাধিক পশু কোরবানি দিয়েছেন। এছাড়া ঈদের পরদিন স্পিডবোট ও নৌকা নিয়ে ঘুরে বেড়ানোর অভিযোগ ওঠেছে।
বিষয়টি আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের সংশ্লিষ্টরা সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপারকে বিষয়টি অবগত করে। সংস্থার পক্ষ থেকে শাল্লা থানা ও দিরাই থানার ওসির সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলে লিখিতভাবে ব্যবস্থা নেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।
শাল্লা থানার ওসি সনজুর মোরশেদ বলেন, শুনেছি যুদ্ধাপরাধ মামলায় জামিনে থাকা আসামি জোবায়ের মনির ঈদে বাড়িতে এসেছেন। তবে নৌ বিহার করেছেন কি না জানি না। আমরা এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে লিখিত প্রতিবেদন দেওয়ার চেষ্টা করব। হুমকি দেওয়ার কোনও অভিযোগ থানা পুলিশকে কেউ করেনি।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. নূর হোসেন জানান, যুদ্ধাপরাধী হিসেবে জোবায়ের মনিরসহ ১১ জনের অপরাধের অভিযোগপত্র ট্রাইব্যুনালে জমা দিয়েছি। এর মধ্যে ৬ জন গ্রেফতার হয়েছে। জোবায়ের মনির অসুস্থতার কথা বলে আদালত থেকে জামিন নিয়ে এলাকায় এসেছেন বিষয়টি জানতে পেরেছি। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান জানান, তিনি জামিন পেয়ে এলাকায় এসেছেন। কাউকে হুমকি ধামকি দেওয়ার বিষয়টি আমার জানা নেই।

উল্লেখ্য ১৯৭১ সালের ৪ ডিসেম্বর হাওরাঞ্চলের শীর্ষ দালাল আব্দুল খালেকের নির্দেশে পেরুয়া, উজানগাও, শ্যামারচরে ভয়াবহ গণহত্যা, অগ্নিসংযোগসহ যুদ্ধাপরাধ সংগঠিত হয়। শ্যামারচর বাজারের স্কুলের সামনে ২৭ জন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনকে লাইন ধরিয়ে জোরপূর্বক ধর্মান্তরিত করে ব্রাশ ফায়ারে হত্যা করে। পরে কয়েকটি পল্লিতে প্রায় ৩ শতাধিক প্রশিক্ষিত রাজাকার বাহিনী দিয়ে নারীদের ধর্ষণ, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ করে ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করে। এই গণহত্যায় নেতৃত্ব দেয় দালাল আব্দুল খালেকের ভাই মুকিত মনির, কদর আলী, ছেলে প্রদীপ মনির, জোবায়ের মনিরসহ প্রশিক্ষিত রাজাকার বাহিনী। ১৯৭২ সালে কদর আলীকে দালাল আইনে গ্রেফতার করা হয়। জোবায়ের মনিরের পরিবারের কারণে এখনও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানুষজন কোণঠাসা। মুক্তিযুদ্ধের পর গণহত্যার চিহ্ন মুছে ফেলে তারা। ২০১৩ সালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে গঠিত গণজাগরণ মঞ্চের আগে তাদের হুমকি-ধমকিতে এই এলাকায় কখনও গণহত্যা দিবস পালন করা সম্ভব হয়নি।

Football news:

In a non-League match in England, an Alpaca ran onto the field and scared the player
1,000 people will be allowed to attend Milan's first game of the season. The club invited doctors to the match
Barcelona will pay 18 million euros to city for their pupil Eric Garcia
Sutton on Chelsea's worst transfer: there are examples of Torres and Shevchenko, but Kepa is ahead of everyone
Acts Kolisevski: I'm lucky that Ronaldo is now my partner. He is great
Manchester United have no plans to buy a Central defender in this transfer window
Vitaly Kutuzov: Atalanta signed the best deal in Serie A by signing Miranchuk