logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo
star Bookmark: Tag Tag Tag Tag Tag
Bangladesh

ইরানে বিমান ভূপাতিতের ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রকে দুষলেন ট্রুডো

ইরানে ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমান ভূপাতিত হওয়ার ঘটনায় আংশিকভাবে যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করেছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। ১৭৬ আরোহী নিয়ে ভূপাতিত বিমানটির সব আরোহীই নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে ৫৭ জন কানাডিয়ান নাগরিক। রবিবার নিহত কানাডিয়ানদের এক স্মরণ সভায় অংশ নিয়ে এ ঘটনাকে ‘কানাডিয়ান ট্র্যাজেডি’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন ট্রুডো।

কানাডার আলবের্টা প্রদেশের এডমনটন এলাকায় এক  স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই ঘটনায় নিহত ৫৭ কানাডিয়ানের ১৩ জনই এ এলাকার বাসিন্দা ছিলেন।

এদিনের স্মরণসভায় অংশ নিয়ে নিহতদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান ট্রুডো। ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়ে বিমানটি ভূপাতিত করার জন্য ইরানের প্রতিও ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

বিমানটি ভূপাতিত হওয়ার পর এ পর্যন্ত এ নিয়ে অন্তত তিন দফায় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছেন ট্রুডো। প্রতিবারই এ ঘটনায় ট্রাম্প প্রশাসনের ভূমিকার কথা উল্লেখ করেছেন তিনি। তবে সোমবার এ নিয়ে আরও খোলামেলা মন্তব্য করেন কানাডিয়ান প্রধানমন্ত্রী।

কানাডিয়ান সম্প্রচারমাধ্যম গ্লোবাল টিভি-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ট্রুডো বলেন, লড়াই ও সংঘাতের মধ্যে এ ঘটনা ঘটেছে। আর নিরপরাধ মানুষ এর শিকার হয়েছে।

দৃশ্যত এক্ষেত্রে ইরানের সঙ্গে ট্রাম্প প্রশাসনের সংঘাতকেই দায়ী করলেন ট্রুডো। অর্থাৎ, সরাসরি যুক্তরাষ্ট্রের নাম না নিলেও এ ঘটনায় দেশটিকেও আংশিকভাবে দায়ী করেছেন তিনি।

জাস্টিন ট্রুডো বলেন, উত্তেজনা নিরসনে সবার কেন একযোগে কাজ করা উচিত; এ বিপর্যয় আমাদের সেটাই মনে করিয়ে দিলো।

নতুন করে সংঘাতে না জড়ানোর উপায় খুঁজে বের করার ওপরও গুরুত্বারোপ করেন কানাডিয়ান প্রধানমন্ত্রী।

২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি ইরানের কুদস ফোর্সের কমান্ডার কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার বদলা নিতে ইরাকের মার্কিন বিমান ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় তেহরান। একইদিন তেহরান থেকে উড্ডয়নের তিন মিনিটের মাথায় ১৭৬ আরোহীসহ ইউক্রেনের একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়। নিহত হয় এর সব আরোহী। পরে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোর অনুসন্ধানে উঠে আসে, ইরান ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়ে বিমানটি ভূপাতিত করেছে। প্রথমে অস্বীকার করলেও আন্তর্জাতিক চাপের মুখে শেষ পর্যন্ত ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে প্লেনটি ভূপাতিত করার কথা স্বীকার করে।

ইরানের সামরিক বাহিনী স্বীকার করেছে, তারা ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমানটি ভূপাতিত করেছে। তবে এটি ছিল ‘অনিচ্ছাকৃত ভুল’।

সামরিক বাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিমানটি সেনাবাহিনীর একটি স্পর্শকাতর স্থানের কাছাকাছি চলে এসেছিল। ফলে এটিকে ‘শত্রু টার্গেট’ বলে মনে করে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়; যা ছিল সম্পূর্ণরূপে একটি ‘মানবিক ত্রুটি’। তবে এ ঘটনায় জড়িতদের জবাবদিহিতার আওতায় আনা হবে।

Themes
ICO