logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo logo
star Bookmark: Tag Tag Tag Tag Tag
Bangladesh

সরকারের কাছে অর্থ নয় পলিসি সাপোর্ট চাই-ভিসিপিয়াব

সরকারের কাছে অর্থ নয় পলিসি সাপোর্ট চাই। যার মাধ্যমে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমের উন্নয়ন হবে। ভেঞ্চার ক্যাপিটাল অ্যান্ড প্রাইভেট ইক্যুইটি অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ভিসিপিয়াব) এর সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির নেতারা এসব কথা বলেন। একই সঙ্গে তারা ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের বাজেটে অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড ম্যানেজারস ও হাই নেট ওর্থ ইন্ডিভিজ্যুয়াল (এইএনআই) ইনভেস্টরদের ট্যাক্স মওকুফ এবং প্রভিডেন্ট ফান্ড ইনভেস্টমেন্টের ক্ষেত্রে ট্যাক্স ছাড়ের দাবি জানিয়েছেন।

তারা বলেন, মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতের উন্নয়নে শুরুতে সরকার অনেক পলিসি সাপোর্ট দিয়েছিল। আমরাও সে ধরনের সাপোর্ট চাচ্ছি। আমাদের খাতে এ ধরনের পলিসি সাপোর্ট দিলে এ খাতে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ হবে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর কাওরান বাজারে সংবাদ সম্মেলন করে ভিসিপিয়াব। এ সময় ভিসিপিয়াব চেয়ারম্যান এবং পেগাসাস টেক ভেঞ্চারের জেনারেল পার্টনার শামীম আহসান, পরিচালক এবং মসলিন ক্যাপিটাল লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওয়ালি-উল মারুফ মতিন, ভাইস চেয়ারম্যান ও ভিআইপিবি অ্যাসেট ম্যানেজমেন্টের চেয়ারম্যান জিয়া ইউ আহমেদ এবং মহাসচিব ও বিডি ভেঞ্চার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শওকত হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

ভিসিপিয়াব চেয়ারম্যান শামীম আহসান বলেন, যুক্তরাষ্ট্র, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়ার মতো দেশগুলোতে অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে ভেঞ্চার ক্যাপিটালের সম্পর্ক উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ছে। যেখানে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল প্রতিষ্ঠানগুলো সরকারের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় পলিসি সহায়তা পায়। সেসব দেশে বড় বড় মাল্টি-বিলিয়ন ডলারের কোম্পানির উঠে আসতে সরাসরি সহায়তা করে।

তিনি বলেন, ভেঞ্চার ক্যাপিটাল সরাসরি কর্মসংস্থান সৃষ্টি, আত্ম-কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি এবং তরুন উদ্যোক্তাদের নতুন কোম্পানির অর্থনৈতিক উৎস হিসেবে কাজ করে। ভেঞ্চার ক্যাপিটালকে সহায়তা দেয়ার জন্য বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট রুলস, ২০১৫ করেছে। এছাড়া ভেঞ্চার ক্যাপিটাল এবং প্রাইভেট ইক্যুইটি খাতের প্রয়োজন মেটাতে অর্থ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)খুবই আন্তরিক। অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড ম্যানেজারস ও হাই নেট ওর্থ ইন্ডিভিজ্যুয়াল (এইএনআই) ইনভেস্টরদের ট্যাক্স মওকুফ এবং প্রভিডেন্ট ফান্ড ইনভেস্টমেন্টের ক্ষেত্রে ট্যাক্স ছাড়ের পলিসি সহায়তা প্রয়োজন। এ সহায়তা পেলে এই খাতে যুগান্তকারী পরিবর্তন আসতে পারে।

ভিসিপিইএবি’র পরিচালক ও মসলিন ক্যাপিটালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওয়ালি-উল মারুফ মতিন বলেন, আমরা পাঠাও ব্যবহার করি। সেখানে আসা যাওয়া করে ভাড়া পরিশোধ করি। এর একটি অংশ অফিসিয়াল সিস্টেমে দেশের বাইরে চলে যায়। তার কারণ, আমরা জানি আমাদের দেশের ছেলেরা পাঠাও স্টার্টআপ করেছে। আসলে তাদের পেছনে ছিল বিদেশী বিনিয়োগ। অথচ আমাদের দেশের কেউ তাদের পেছনে বিনিয়োগ করলে যে অর্থ বিদেশীরা নিয়ে যাচ্ছে তা দেশেই থেকে যেতো।
তিনি বলেন, যদি অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড ম্যানেজারদের কর মওকুফের সুবিধা দেওয়া হয়, তাহলে ১০ বছরে সরকার অধিক কর পাবে। তাই এ খাতের উন্নয়নে পলিসি সাপোর্ট দেওয়া উচিত। আমরা অর্থ চাই না, পলিসি সাপোর্ট চাই।

ভিসিপিয়াব ভাইস চেয়ারম্যান ও ভিআইপিবি অ্যাসেট ম্যানেজমেন্টের চেয়ারম্যার জিয়া ইউ. আহমেদ বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া এবং তরুণ উদ্যোক্তাদের উন্নয়ন ও ডায়নামিক হয়ে উঠতে সহায়তা দেয়ার জন্য আমরা সরকারকে ধন্যবাদ জানাই। মোবাইল খাতের বিদ্যমান ভ্যাট ও সম্পূরক কর ধারাবাহিকভাবে মওকুফ, ভ্যাট নিবন্ধনের পরিমান বৃদ্ধি, ৫০ লাখ থেকে ৩ কোটি বার্ষিক টার্নওভারের এসএমই প্রতিষ্ঠানগুলোর ক্ষেত্রে ৪ শতাংশ টার্নওভার ট্যাক্স খুবই ভালো উদ্যোগ। যা এসব খাতের উন্নয়নে সহায়তা করবে।
তিনি বলেন, অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডে ব্যক্তিগত বিনিয়োগের জন্য উৎসাহ দিতে ট্যাক্স অব্যহতি দেয়া উচিত। যা ইনস্যুরেন্স ও অন্যান্য ক্ষেত্রে দেয়া হয়। এছাড়া প্রভিডেন্ট ফান্ডে বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের ক্ষেত্রেও ট্যাক্স ছাড় দেয়া উচিত।

তিনি আরও বলেন, পৃথিবীর কোন দেশে অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্টের ফান্ডে স্ট্যাম্প ডিউটি নেই। তাই বাংলাদেশেও স্ট্যাম্প ডিউটি প্রত্যাহার করার দাবি জানাচ্ছি। একইসঙ্গে দেশে মিউচ্যুয়াল ফান্ড ম্যানেজারদের শুরুতে যেমন ১০ বছর কর মওকুফের সুবিধা দেওয়া হয়েছিল, তেমনিভাবে অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড ম্যানেজারদের সুবিধা দেওয়ার দাবী জানাই।

ভিসিপিয়াব মহাসচিব এবং বিডি ভেঞ্চার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শওকত হোসেন বলেন, ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ও প্রাইভেট ইক্যুইটি খাতটি এখন বর্ধনশীল পর্যায়ে রয়েছে। আমরা সরকারের প্রতি এই দাবি জানাই যে, অল্টারনেটিভ ফান্ড ম্যানেজারদের আয়কর আগামী ১০ বছরের জন্য পুরোপুরি অব্যহতি বা আয়করের হার কমানো হোক। একটি ভিসিপিই প্রতিষ্ঠানকে তাদের প্রধান ব্যবসায় থেকে আয় পেতে সাধারণত এই সময়ের প্রয়োজন হয়। এর আগে খুবই সামান্য পরিমানে আয় হয়, যা দিয়ে কোম্পানিকে শুধুমাত্র চলমান রাখা সম্ভব। এই ছোট্ট আয়ে ট্যাক্স থাকলে সেটি এই খাতের জন্য খুবই সর্বনাশ হবে।

তিনি বলেন, স্টার্টআপের জন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করার জন্য আমরা সরকারকে ধন্যবাদ জানাই। বাংলাদেশের ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানিগুলো যথাযথ পলিসি সহায়তা পেলে স্টার্টআপ খাতে হাজারো কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে পারবে। তাই সরকার থেকে আমাদের পলিসি সহায়তা প্রয়োজন।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট বিধি পাস করে। এই বিধির আওতায়, বাংলাদেশে বিভিন্ন ভেঞ্চার ক্যাপিটাল এবং প্রাইভেট ইক্যুইটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠিত হয়। পাশাপাশি, অনেক বিদেশি ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানি বাংলাদেশে কাজ করা শুরু করে। স্থানীয় স্মার্টআপ ইকোসিস্টেম তৈরিতে কাজ করার জন্য ২০১৬ সালে এসকল ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ও প্রাইভেট ইক্যুইটি কোম্পানি মিলে ‘ভেঞ্চার ক্যাপিটাল অ্যান্ড প্রাইভেট ইক্যুইটি অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ভিসিপিইএবি)’ গঠন করে।

All rights and copyright belongs to author:
Themes
ICO